সুস্থ জীবনের জন্য দুধ ও মধু

দুধ আর মধু- দুটিই পুষ্টিগুণে ভরপুর খাবার। ক্যালসিয়ামের সবচেয়ে ভালো উৎস হচ্ছে দুধ। ক্যালসিয়াম দাঁত ও হাড়ের গঠনে সাহায্য করে, দাঁতের ক্ষয়রোধ করে। এছাড়া দৃষ্টিশক্তি ভালো করতেও দুধ অনেক সাহায্য করে। সারাদিনের কর্মব্যস্ততার পর ক্লান্তি দূর করতে এক গ্লাস গরম দুধ খাওয়া খুবই উপকারী। গরম দুধ ক্লান্ত পেশি সতেজ করতে সাহায্য করে।

গরম দুধের সঙ্গে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ মধু মিশিয়ে খেলে আরও বেশি স্বাস্থ্য উপকারিতা পাওয়া যায়। যেমন-

চোখ ভালো রাখে : মধুর মধ্যে থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিফাংগাল যে কোনও ধরনের সংক্রমণ সারাতে ভূমিকা রাখে। এছাড়াও দুধে ভিটামিন ডি, এ, ল্যাকটিক অ্যাসিড, ক্যালসিয়াম থাকায় দুটি উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে খেলে একদিকে যেমন দৃষ্টিশক্তি ভালো থাকে তেমনই চোখের পেশির কার্যক্ষমতা বাড়ে। চোখের জন্য বেশ কিছু ওষুধেও ব্যবহার করা হয় মধু।

মানসিক চাপ কমায় : গরম দুধ আর মধু একসঙ্গে খেলে তা স্নায়ুর উপর প্রভাব ফেলে। ফলে পেশির ক্লান্তি দূর হয়। মানসিক চাপ কমে। হজম ভালো হয়। ফলে ঘুমও ভালো হয়।

কোষ্ঠকাঠিন্য কমায় : গরম দুধে মধু মিশিয়ে যদি প্রতিদিন রাতে শুতে যাওয়ার আগে খাওয়া যায় তাহলে কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা থেকে মুক্তি মেলে। পেট পরিষ্কার থাকে। যারা গ্যাসের সমস্যায় ভুগছেন তারা যদি প্রতিদিন এই গরম দুধ খান তাহলে উপকার পাবেন। তবে খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। যাদের দুধে সমস্যা আছে তারা এই পদ্ধতি এড়িয়ে চলুন।

শক্তি বাড়ায় : মধু আর দুধ এমনিই প্রচুর শক্তি বাড়ায়। কাজেই যখন দুটি উপাদান একসঙ্গে মেশানো হয় তখন এর শক্তি দ্বিগুণ বেড়ে যায়। সকালে নাস্তার পর এক গ্লাস দুধ- মধু খেলে সারাদিনের শক্তি জোগাবে।

পেটের যে কোনও সংক্রমণে : অনেকেই নানা ধরনের পেটের সমস্যায় ভোগেন। এছাড়াও হজমের সমস্যা তো থাকেই। আর মধুর মধ্যে থাকা অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান পাকস্থলীর সংক্রমণের সঙ্গে লড়াই করে।

মনোযোগ বাড়ায় : একটানা ঘরে বসে কাজ করার ফলে অনেকেরই নানা রকম সমস্যা হচ্ছে। বিশেষ করে অনেকের মানসিক সমস্যা দেখা দিচ্ছে। যার ফলে মস্তিষ্কেও এর প্রভাব পড়ছে। এক্ষেত্রে মধু আর দুধ খুব উপকারী। মধু মস্তিষ্কে ভালো প্রভাব ফেলে আর দুধ মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা ঠিক রাখে। সব মিলিয়ে মনসংযোগের ঘাটতি পূরণে দুধ-মধু বেশ কার্যকরী।

এই পাতাটি ১৭বার পড়া হয়েছে

স্বাস্থ্য প্রবন্ধ